Select Page

আনারস আমাদের দেশি ফলের মধ্যে একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় রসালো ফল। ফলের রাজ্যে আনারসের উপকারিতা অস্বীকার করার সুযোগ নেই। অনেকেই আনারস খেতে খুবই পছন্দ করেন। তবে দুধ ও আনারস এক সঙ্গে খাবার ব্যাপারে আমাদের সমাজে একটা মিথ্যা কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে। আসলে দুধ ও আনারস এক সাথে খেলে এতে কোনো বিষক্রীয়া হয়না বা মানুষ মারা ও যায়না। তবে যাদের হজমে সমস্যা, পেট খারাপ বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা আছে, তাদের জন্য আনারস ও দুধ একসাথে না খাওয়াই ভালো। খেলে এসব রোগ বেড়ে যেতে পারে। যদি খেতেই হয় তাহলে দুটি খাবারের মধ্যে ২-৩ ঘন্টা বিরতি দিয়ে খেলে আশা করি কোনো সমস্যা হবে না।

 

বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত আনারসের উপকারিতা

১. সুস্থ্য হাঁড়ের জন্য আনারস

আনারস ম্যাংগানিজ এর একটি চমৎকার উৎস। সুস্থ্য হাড় ও তরুণাস্থি গঠনের জন্য মিনারেল প্রয়োজন হয়। প্রয়োজনীয় মিনারেল ও ম্যাংগানিজ এর অভাব বিশেষ করে কৈশোরে হাঁড়ের স্বাভাবিক বৃদ্ধির গতি কমিয়ে দিতে পারে। যা পরবর্তীতে হাড়ক্ষয় রোগের অন্যতম কারণ হতে পারে।

 

২. আর্থ্রাইটিস এর জন্য আনারস

আনারসে ব্রমলেইন (Bromelain) এর উপস্থিতি রয়েছে। তবে তা বিশেষ বিশেষ রোগ নিরাময়ে যথেষ্ঠ নয়। বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, ব্রমলেইন (Bromelain) রিউমাটোয়েড আর্থ্রাইটিসের মাধ্যমে রোগীর ব্যাথা কমাতে সাহায্য করে। এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, ব্রমলেইন, ট্রিপসিন ও রুটোসিডের একত্রে নন-অস্টেরয়েডিয়াল আন্টি-ইনফ্লামেটরী ড্রাগ হিসেবে কাজ করে। যা হাঁটুর ব্যাথা সারাতে যথেষ্ট কার্যকর।

 

৩. রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে আনারস

আনারস ভিটামিন সি এর একটি চমৎকার উৎস, যা মানবদেহের জন্য অতীব জরুরি একটি ভিটামিন। এছাড়া আনারসে বিদ্যমান ম্যাংগানিজ মানবদেহের ইমমিউন সিস্টেম শক্তিশালী করতে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

 

৪. হজমে আনারসের ভূমিকা

আনারসের ব্রমলেইন (Bromelain) এ প্রোটোলাইটিক এনজাইম এর একটি গ্রুপ বিদ্যমান, যা হজমে সাহায্য করে।

 

৫. এজমা নিয়ন্ত্রণে আনারস

গবেষণায় দেখা গেছে, আনারসের ব্রমলেইন (Bromelain) এজমার ব্যাথা ও প্রদাহ উল্লেখযোগ্যভাবে কমাতে সাহায্য করে।

 

৬. ক্যান্সারে আনারস

এটিও একটি গবেষণালব্ধ উপাত্ত, আনারস খেলে মানবদেহে নাইট্রোসেমইন্স (যা ক্যান্সার উৎপাদক হিসেবে পরিচিত) তৈরী কমে যায়। ফলে মানবদেহে ক্যান্সার হবার প্রবণতাও হ্রাস পায়।

 

৭. বিষণ্ণতায় আনারস

আনারসে প্রচুর পরিমানে নিয়াসিন (ভিটামিন বি৩) এবং এমাইনো এসিড (ট্রিপটোফান) আছে যা মানবদেহে নিউরোট্রান্সমিটার সেরোটোনিন উৎপাদনে সহায়তা করে। আর ইহা বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত যে সেরোটোনিন (serotonin) এর মাত্রার ভারসাম্যহীনতা মানুষের বিষন্নতার জন্য দায়ী হতে পারে।

 

৮. তীব্র সাইনাসাইটিস এর জন্য আনারস

আনারসে বিদ্যমান ব্রমলেইন (Bromelain) সূত্র (ফোলা) এবং প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া প্রচন্ড সাইনাসাইটিস এর উপসর্গ বা ব্যাথা উপশম করে। জার্মানিতে কিশোর-কিশোরী দেড় তীব্র সাইনাসাইটিস এর চিকিৎসায় ব্রমলেইন (Bromelain) খুবই জনপ্রিয়। বিশেষ করে ১১ বছরের কম বয়সী বাচ্চাদের ক্ষেত্রে চিকিৎসাটি বেশি কার্যকর।

 

৯. সুস্থ্য ত্বকের জন্য আনারস

আমরা জানি যে আনারসের মধ্যে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি আছে যা কোলাজেন সিনথেসিন এ অংশগ্রহণ করে মানবদেহের ত্বকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এন্টিঅক্সিডেন্ট তৈরী করে। যা ত্বকের সাস্থ্য রক্ষায় খুবই দরকারী। এছাড়া আনারসে রয়েছে আলফা হাইড্রোক্সি এসিড যা ময়েশ্চারাইজিং ত্বকের জন্য এবং ত্বকের মৃত কোষ অপসারণের পাশাপাশি ব্রণ চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়।

 

১০. প্রদাহে আনারস

রিসার্সে দেখা গেছে, ব্রমলেইন (Bromelain) একটি কার্যকরী এন্টি -ইনফ্লামেটরী যা গলা ফোলা, তীব্র সাইনসাইটিস, গেঁটেবাত ও আর্থ্রাইটিস ইত্যাদি রোগ নিরাময়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এছাড়া সার্জারী বা আঘাত থেকে দ্রুত রিকভার হতে সাহায্য করে।

 

তাই প্রচুর পরিমানে আনারস খান, আনারসের উপকারিতা লাভ করুন।

 

আরও পড়ুন

ক্যালোরি চার্ট – ক্যালোরি হিসেব করে খাবার খান হৃদরোগ থেকে বাঁচুন, ওজন কমান
কিডনি রোগের লক্ষণ, কারণ, জটিলতা, ঝুঁকি, প্রতিকার ও প্রতিরোধ বিস্তারিত জানুন
১০ টি যুগান্তকারী স্বাস্থ্য টিপস মেনে চলুন – সুস্থ্য জীবন জয় করুন
এজমা রোগের চিকিৎসা করুন একটি ঘরোয়া পথ্য ব্যবহার করে – ৯৯% নিরাময়
শরীরের যেসব অঙ্গ স্পর্শ করার পূর্বে হাত ধুয়ে নেয়া অত্যন্ত জরুরী – এক্ষুনি জেনে নিন
হেপাটাইটিস বি এর লক্ষণ সমূহ ও হেপাটাইটিস বি হলে করনীয় – আরো অনেক কিছু
পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা, পাইলস রোগীর খাবার ও পাইলস প্রতিরোধের উপায়সমূহ
গুরুত্বপূর্ণ বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস ও সচেতনতা দিবস সমুহের এর তালিকা
৪ টি কার্য্যকরী ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট – দ্রুত শরীরের ওজন কমান
Show Buttons
Hide Buttons