Select Page

ক্রনিক বা দীর্ঘমেয়াদী কিডনি রোগ কি?

ক্রনিক বা দীর্ঘমেয়াদী কিডনি রোগ, ক্রনিক কিডনি ফেইলার ও বলা হয়। এ রোগে কিডনির ফাংশন ধীরে ধীরে নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়। শরীরের রক্ত থেকে কিডনি ফিল্টার করে অতিরিক্ত বর্জ্য এবং তরল প্রস্রাব এর সাথে শরীর থেকে বের করে দেয়। ক্রনিক কিডনি রোগ যখন অ্যাডভান্স স্টেজে পৌঁছে, তখন আপনার শরীরে মাত্রা অতিরিক্ত বিপজ্জনক তরল, ইলেক্ট্রোলাইট এবং বর্জ্য তৈরি করতে পারে।

এই রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে, আপনার কয়েকটি লক্ষণ বা উপসর্গ দেখে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার কিডনি রোগ হয়েছে। আপনার কিডনি ফাংশন উল্লেখযোগ্যভাবে অসুস্থ না হওয়া পর্যন্ত দীর্ঘমেয়াদী কিডনি রোগটি সুস্পষ্ট হয়ে উঠতে পারে না। আপনার কিডনির ক্রিয়া উল্লেখযোগ্যভাবে বন্ধ হলে বুঝতে হবে আপনি দীর্ঘমেয়াদী কিডনি রোগে আক্রান্ত।

ক্রনিক কিডনি রোগের প্রতিকার এর ক্ষেত্রে মূলত কিডনি ড্যামেজ এর অগ্রগতি হ্রাসের উপর জোর দেয়া হয় । ক্ষতির পরিমান কমিয়ে আনতে পারলে রোগের চিকিৎসা সহজ হয়। কিডনি রোগটি শেষ পর্যায়ে কিডনি পুরোপুরি বিকল হওয়ার দিকে অগ্রসর হতে পারে, এক্ষেত্রে কৃত্রিম ফিল্টারিং (ডায়ালাইসিস) বা কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট ছাড়া অন্য কোনো উপায় থাকে না।

 

কিডনি রোগের প্রতিকার বিস্তারিত জানুন

ক্রনিক কিডনি রোগের লক্ষণ

কিডনি রোগের প্রতিকার এর ক্ষেত্রে প্রথমেই রোগীর বা সম্ভাব্য রোগীর শরীরে কিডনি রজার লক্ষণ বা উপসর্গসমূহ বিদ্যমান কিনা বা কি পরিমান বিদ্যমান? সাধারণত কিডনি যে পরিমান বিকল হয়েছে উপসর্গ বা লক্ষণ গুলোও সে পরিমান লক্ষণীয় হয়ে ওঠে।

কিডনি রোগের লক্ষণ এবং উপসর্গগুলির মধ্যে নিম্নে বর্ণিত লক্ষণসমূহ অন্যতম:

  • বমি বমি ভাব
  • বমি
  • ক্ষুধামন্দা
  • ক্লান্তি এবং দুর্বলতা
  • ঘুম সমস্যা
  • কতবার প্রস্রাব হয় তাতে পরিবর্তন
  • মানসিক তীক্ষ্নতা হ্রাস বা কমে যাওয়া
  • পেশীতে আকস্মিক টান বা বাধা
  • পা এবং গোড়ালি ফোলা
  • নিরবিচ্ছিন্ন খিঁচুনি
  • বুকে ব্যথা, যদি তরল হার্টের চারপাশে জমা হয়
  • ক্ষীণ শ্বাস-প্রশ্বাস, ফুসফুসের মধ্যে যদি তরল তৈরি হয়
  • উচ্চ রক্তচাপ যা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন

কিডনি রোগের লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি প্রায়ই রোগীদের লক্ষণ এর সাথে মেলেনা, যার মানে অন্য কোনো অসুস্থতার কারণেও এসব লক্ষণ বা উপসর্গসমূহ পরিলক্ষিত হতে পারে। কারণ কিডনির অভিযোজন ক্ষমতা বেশি বলে নিজের ক্ষতিপূরণ পুষিয়ে নিতে পারে। প্রকৃত লক্ষণ বা উপসর্গ তখনই পরিলক্ষিত হবে যখন কিডনির ক্ষতির পরিমান বেশি হয়ে যায়।

 

কখন ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন?

যদি আপনার শরীরে কিডনি রোগের কোন লক্ষণ বা উপসর্গ আছে বলে মনে হয়, দ্রুত একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে একটি অ্যাপয়েন্টমেন্ট করুন।

আপনার শরীরের এমন কোনো বিশেষ অবস্থা যদি থাকে যা কিডনি রোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে তাহলে হয়তো আপনার ডাক্তার রেগুলার চেকআপ এর সময় আপনার রক্তচাপ এবং মূত্র এবং রক্ত ​​পরীক্ষার মাধ্যমে কিডনি ফাংশন নিরীক্ষণ করতে পারেন।

 

ক্রনিক কিডনি রোগের কারণসমূহ

কিডনি রোগে আক্রান্ত হওয়ার কারণসমূহের মধ্যে রয়েছে:

  • টাইপ 1 বা টাইপ 2 ডায়াবেটিস
  • উচ্চ্ রক্তচাপ
  • গ্লোমেরুলোফিনেটিস, কিডনির ফিল্টারিং ইউনিটগুলির একটি প্রদাহ (গ্লোমারুলি)
  • অভ্যন্তরীণ নেফ্রাইটিস, কিডনির টিউব এবং পার্শ্ববর্তী কাঠামোর একটি প্রদাহ
  • পলিসিস্টিক কিডনি রোগ
  • প্রস্রাব, কিডনি পাথর এবং কিছু ক্যান্সারের মতো অবস্থার থেকে মূত্রনালীর এরিয়াতে দীর্ঘস্থায়ী বাধা
  • Vesicoureteral reflux ভেসিকোরেটেরাল রিফ্লাক্স (বিপরীত প্রবাহ), আপনার প্রস্রাবকে আপনার কিডনিতে ফেরত পাঠায়
  • ক্রমাগত কিডনি সংক্রমণ, যা pyelonephritis পিয়ানোফ্রেটিস নামেও পরিচিত

 

ঝুঁকির কারণসমূহ

ক্রনিক কিডনি রোগের ঝুঁকি বাড়াতে পারে এমন ফ্যাক্টরগুলি হল:

  • ডায়াবেটিস
  • উচ্চ্ রক্তচাপ
  • হার্ট এবং রক্তনালী (কার্ডিওভাসকুলার) রোগ
  • ধূমপান
  • স্থূলতা
  • আফ্রিকান আমেরিকান, নেটিভ আমেরিকান বা এশিয়ান আমেরিকান হওয়া
  • কিডনি রোগের পারিবারিক ইতিহাস
  • অস্বাভাবিক কিডনি গঠন
  • বৃদ্ধ বয়স

 

কিডনি রোগের প্রতিকার কিডনি সুস্থ ও অসুস্থ

জটিলতা

ক্রনিক কিডনি রোগ আপনার শরীরের প্রায় প্রতিটি অংশ প্রভাবিত করতে পারে। সম্ভাব্য জটিলতাগুলি নীম্নরুপঃ

  • আপনার ফুসফুস, বহু ও পা ফুলে যাওয়া বা পানি জমতে পারে, যাকে pulmonary edema ও বলে
  • আপনার রক্তে পটাসিয়ামের মাত্রা হঠাৎ বেড়ে গিয়ে হার্টের কার্যক্ষমতা হ্রাস করতে পারে এবং জীবন এর জন্য মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ
  • হার্ট এবং রক্তনালী (কার্ডিওভাসকুলার) রোগ
  • দুর্বল হাড় এবং হাড় ফাটলের ঝুঁকি
  • রক্তাল্পতা বা রক্তস্বল্পতা
  • যৌনক্ষমতা হ্রাস, গর্ভের উর্বরতা হ্রাস
  • কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র ড্যামেজ
  • ইমিউন রেসপন্স কমায়, যার ফলে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়
  • পেরিকার্ডিটাইটিস, এটি শর্করাবর্ণ ঝিল্লির একটি প্রদাহ যা আপনার হার্টকে আবৃত করে রাখে (পেরিকার্ডিয়াম)
  • গর্ভাবস্থার জটিলতা যেমন মা এবং ভ্রূণের ঝুঁকি বাড়ায়
  • আপনার কিডনির অপূরণীয় ক্ষতি, অবশেষে বেঁচে থাকার জন্য ডায়ালিসিস বা কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট প্রয়োজন হয়

 

কিডনি রোগের প্রতিকার – প্রতিরোধ ও ঝুঁকি কমাতে নিচের পদক্ষেপগুলি গ্রহণ করুন

  • ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক নিয়মিত পরিমান মতো পানি পান করুন
  • কখনো প্রস্রাব চেপে রাখবেন না। যখনই প্রস্রাবের বেগ হয় প্রস্রাব করে নেবেন।
  • প্রেস্ক্রিপশন ছাড়া কোনো পেইন-কিলার (অ্যাসপিরিন, ইবুপ্রোফেন, এসিট্যামিনোফেন ইত্যাদি) ব্যবহারের ক্ষেত্রে ঔষধের সাথে প্রদত্ত নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন। অতিরিক্ত পেইন-কিলার ব্যবহারের ফলে কিডনি ড্যামেজ হতে পারে। তাই ঝুঁকি এড়াতে এই ঔষধ আপনার জন্য নিরাপদ কিনা আপনার ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করুন।
  • আপনার শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ করুন। ওজন কমাতে হলে, স্বাস্থ্যকর ওজন কমানোর কৌশল সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দৈনিক শারীরিক কার্যকলাপ এবং ক্যালোরি শরীরের ওজন এর সাথে বিশেষভাবে জড়িত।
  • ধূমপান করবেন না। সিগারেট ধূমপান আপনার কিডনি ড্যামেজ করে দিতে পারে। যদি আপনি ধূমপায়ী হন, ধূমপান ত্যাগ করার কৌশল সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন, সাপোর্ট গ্রুপ, কাউন্সেলিং এবং প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক ঔষধ ব্যবহার করতে পারেন
  • নিয়মিত আপনার শরীরের রুটিন-চেকআপ করান। ডাক্তারের সাহায্যে আপনার শারীরিক স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রনে রাখুন।

 

কিডনি সুস্থ রাখতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে যে ১০ খাবার

১. রসুন
২. জাম্বুরা
৩. বীট ও গাজর
৪. সবুজ চা
৫. সবুজ শাক-সবজি
৬. আপেল
৭. অলিভ অয়েল বা অলিভের তেল
৮. লেবু
৯. বাঁধাকপি
১০. হলুদ

কিডনি রোগের যেকোনো লক্ষণ পরিলক্ষিত হবার সাথে সাথে অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

 

আরও পড়ুন:

১০ টি যুগান্তকারী স্বাস্থ্য টিপস মেনে চলুন – সুস্থ্য জীবন জয় করুন
এজমা রোগের চিকিৎসা করুন একটি ঘরোয়া পথ্য ব্যবহার করে – ৯৯% নিরাময়
শরীরের যেসব অঙ্গ স্পর্শ করার পূর্বে হাত ধুয়ে নেয়া অত্যন্ত জরুরী – এক্ষুনি জেনে নিন
হেপাটাইটিস বি এর লক্ষণ সমূহ ও হেপাটাইটিস বি হলে করনীয় – আরো অনেক কিছু
পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা, পাইলস রোগীর খাবার ও পাইলস প্রতিরোধের উপায়সমূহ
গুরুত্বপূর্ণ বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস ও সচেতনতা দিবস সমুহের এর তালিকা
৪ টি কার্য্যকরী ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট – দ্রুত শরীরের ওজন কমান

 

Show Buttons
Hide Buttons